হেফাজতের সুবহানাল্লাহ ও সুরন্জিতের হরে রাম, না বলা কিছু কথা ও অামার একটি বিশ্লেষণঃ সৌভাগ্য যে অাল্লাহ্ অামায় মুসলিম বানিয়েছেন

ওগো আল্লাহ শোকর তোমার,
আমাকে যে মুসলিম করেছো।।
=====================
…. অনেকগুলো মানুষ মিলে একটা নিথর লাশকে চ্যাংদোলা করে নিয়ে আসলো.. শুকনো কাঠ বিছানো একটা মাচার উপর লাশটাকে উপুত করে রাখলো.. গায়ের উপর থেকে পাতলা সাদা কাপড়টাকে সরিয়ে নিলো.. এরপর নিথর সেই দেহটার উপর রাখলো আরো কিছু শুকনো কাঠেরর টুকরো.. প্রায় সাতজন হাতে কিছু খড় নিয়ে সেগুলোতে আগুন জ্বালালো.. কাঠে মোড়ানো সেই লাশটার চারপাশে আগুন নিয়ে সাতটি চক্কর দিতে উদ্যত হলো সবাই.. আমি নিশ্চিত, লাশটা তখন চিতকার দিয়ে বলছিলো,
… আগুন অনেক কষ্টের.. :’( আমার গায়ে আগুন দিস না তোরা..!

কিন্তু নিথর দেহ থেকে উচ্চারিত সেই শব্দ কেহ শুনলো না। বরং সেই সাতজন আগুন নিয়ে তার চতুর্দিকে চক্কর দিতে লাগলো এবং একজন একজন করে তার মুখে একটু একটু করে আগুন দেয়া শুরু করলো.. প্রথমেই তার মাথায় থাকা অল্প কিছু চুল পুড়ে কালো হয়ে গেলো.. সাতজন একটু একটু করে আগুন দিতে দিতে তার মাথা থেকে প্রথমে সবগুলো চুল পুড়িয়ে ফেললো.. আগুনে পোড়া চুলহীন ঐ মাথাটা দেখতে তখন ভয়ংকর রকমের বিভৎস লাগছিলো.. এরপর আগুন দেয়া শুরু করলো তার মুখে.. পুড়লো তার কালো বর্নের মুখটা.. আগুনের তোড়ে তার মুখের চামড়াগুলো প্রথমে পুড়লো অতঃপর আগুন ছড়িয়ে পড়লো পুরো কাঠের টুকরোগুলোতে.. পুড়তে লাগলো তার পুরো দেহ..

যখন তার দেহে পুরো আগুনটা ছড়িয়ে পড়লো তখন কাকতালীয়ভাবে দুরে কোন মসজিদ থেকে ভেসে আসছিলো মুয়াজ্জীনের সুরে একটা বাক্য,
“আল্লাহু আকবার, আল্লাহু আকবার”

পুরো আযানের সময়টা ধরেই তার দেহে আগুন ছড়িয়ে পড়েছে.. এরপর ধিরে ধিরে তার পুরো দেহটা পুড়েছে.. প্রথমে চামড়াগুলো পুড়েছে.. খসে খসে পড়েছে দেহের চামড়াগুলো.. দেহের চামড়া পোড়া জমাট বাধা ধোয়া উপড়ে উঠছিলো.. এরপর তার দেহের চর্বিগুলো আগুনে পরে পরে চরচর শব্দ হচ্ছিলো.. সেই সাথে সাথে ধোয়া থেকে বের হচ্ছিলো চর্বি পোড়া মারাত্মক দুর্গন্ধ.. এরপর পুড়েছে তার কাঁচা মাংসগুলো.. অনেকটা কিমা কাবাবের মত কালো কালো হয়ে তার দেহের মাংসগুলো আগুনে গ্রাস করেছে.. এরপর এসেছে দেহের সবচেয়ে শক্ত উপাদান হাড়গোড় পোড়ার পালা.. আগুন ততক্ষনে চর্বি আর মাংস পুড়িয়ে তিব্র থেকে তিব্রতর হয়েছে.. প্রচন্ড উত্তাপের আগুন তার দেহের হাড়গুলো পোড়ানো শুরু করলো.. কোন ধরনের মায়া মমতা ছাড়াই আগুন তার হাড়গুলো পুড়িয়ে ছারখার করে ফেললো.. পুড়েছে তার মাথার খুলি.. বুকের পাজর.. সব কিছু.. সর্বশেষে পুড়েছে তার দেহের মধ্যভাগের নাভিটা.. সাধারনত নাভি আগুনে পোড়ে না.. একটা স্প্রিংয়ের মত বন্ধন থেকে মুক্ত হয়ে নাভিটা ছিটকে দুরে কোথাও চলে যায়.. জানি না এই লাশের নাভির কি পরিণতি হয়েছে.. তবে প্রচন্ড বেগের উত্তপ্ত আগুন তার দেহের কোন অংশকেই অক্ষত রাখেনি এটাই নির্মম বাস্তবতা.. আর চরম নির্মমতার মাধ্যমে একটা দেহের সাথে এই আচরণটা করেছে দেহের মালিকের আপনজনেরাই..

এটা একটা ধর্মীয় বিধান..!! তাই কোন ধরনের মন্তব্য করছি না তবে ২৩ মিনিটের একটা ভিডিওতে ২০ মিনিট ধরে একটা নিথর লাশের সাথের এই আগুনের নির্মমতা দেখে অন্তরাত্মা কেঁপে উঠেছে অনেকটাই.. বুকের হার্টবিট বেড়ে উঠেছিলো আমার.. মনে হচ্ছিলো যেন নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে যাবে.. তারপরও তিনবারের প্রচেষ্টায় পুরো ভিডিওটা দেখেছি.. দেখেছি একজন ক্ষমতাধর ব্যাক্তির দুনিয়াতেই নির্মম শেষ পরিণতি..

প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন,
…. তাহার মৃত্যু বাংলাদেশের রাজনীতির এক অধ্যায়ের সমাপ্তি..
কিন্তু সমাপ্তিটা যে এত ভয়ংকর নির্মম হবে ভাবতেও পারছি না..
.
.
বেঁচে থাকাকালীন কি না করেছে এই লোকটা.! তার স্বজাতীর জন্য অন্য জাতি, ধর্মকে যেন আমলেই নিতেন না তিনি.. ২০১৩ সালের ৫-ই মে রাতে একটা ধর্মীয় গোষ্টির উপর নির্মম অত্যাচারের বিবরন তিনি পরের দিন সংবাদ মাধ্যমে এভাবে দিয়েছিলেন,
… হেফাজত সুবানাল্লা সুবানাল্লা বলে ঢাকা ছেড়ে পালিয়েছে!

অথচ আজকে যদি কেহ বলে,
… চরম সাম্প্রদায়িক একটা লোক তার দেহটাকে তার ঐ স্বজাতীর দেয়া আগুনেই ভস্ম করেছে “হরে রাম, হরে রাম” শব্দের সাথে সাথেই, আগুনে পুড়েই হয়েছে তার ধরাধম সমাপ্তি.! তবে কি বলার থাকবে বলেন! এটাই পৃথিবীর নির্মম বাস্তবতা।

তবে বেশ অবাক হলাম,
… সকাল সন্ধ্যা ইসলামকে উদ্দিশ্য করে কথীত বর্বর বর্বর বলে জিকির করা একদল নাস্তিক প্রজাতির কেহ এই ভয়ংকর ব্যাপারটা নিয়ে কোন টু শব্দটিও করলো না দেখে.. ধর্মকে (ইসলামকে) ধর্ষণ করার অপচেষ্টা করা একদল হিপোক্রেটরা এই ভয়ংকর ধর্মীয় বিধানটা নিয়ে কোন কথাই বললো না.. একটা বারও বললো না এটা একটা নিকৃষ্ট পর্যায়ের বর্বরতা.. আসলে তাদের ভাগ্য বরাবরই ভালো কারন তাদের মৃত্যুর পর কোন এক অজানা কারনে তাদের দেহের সাথে এই বর্বরতা করা হয় না বরং তাদের দেহকে পরম মমতায় সাবান আর হালকা গরম পানিতে গোছল করিয়ে বাশের চালা দিয়ে পরম আদরের সহিত মাটিতে রাখা হয়.. মাটি যাতে তার দেহের উপর না পরে সে জন্য উপরে বাঁশের চালা দেয়া হয়.. এই ইসলাম বিদ্ধেষী কথীত নাস্তিকদের দেহের সাথেও যদি এই আচরনটা করা হতো তবে তারা বুঝতে পারতো ইসলাম কত মানবতার ধর্ম.. জিবিত অবস্থায় তো বটেই.! মৃত্যুর পরও ইসলাম একটা নিথর দেহের সাথে কতটা মানবতার সাথে আচরন করে। সত্যিই তারা এটা বুঝতে পারতো।

পরিশেষে,
….. সুরঞ্জিত সেন গুপ্তের লাশ পোড়ানোর এই ভিডিওটা হোক প্রতিটা মানুষের জন্য পরম শিক্ষার.. এবং সেই সাথে সাথে ইউটিউবের একটা চ্যাণেলে আপলোড হওয়া এই ভিডিওটার নিচে পাওয়া একটা কমেন্ট লিখে শেষ করছি লেখাটা,
….কী বিভৎসতা, বর্বরতা!!! এমন নিকৃষ্ট ধর্মীয় নজির সম্ভবত: পৃথিবীতে আর নাই!! একটা মৃত মানুষকে এভাবে আগুণে পোড়ানোর দৃশ্য সুস্থ বিবেক সম্পন্ন মানুষের জন্য দেখা কঠিন। “ইসলাম এসেছে মানুষকে আগুণ থেকে রক্ষা করার জন্য” হে আল্লাহ, ইসলামের সমুহান আদর্শ পেয়ে আজ আমি তোমার দরবারে কৃতজ্ঞতায় বারবার মস্তক অবনত করছি।

হুম, আমিও আমার মস্তক অবনত করে বলছি,
… “ওগো আল্লাহ্‌, শোকর তোমার,
আমাকে যে মুসলিম করেছ…”
—+

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুণ

Hasib R Rahmanভাইয়ের ওয়াল থেকে।কপিরাইট

About الفقه الحنفي الفقه الاكبر

বিদগ্ধ মুফতিয়ানে কেরামের দ্বারা পরিচালিত , সকল বাতিলের মুখোশ উন্মোচনে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ , উলামায়ে আহনাফ এবং হানাফি মাজহাবের অনুসারীদের সরবাধুনিক মুখপাত্র ফিকহে হানাফী দ্যা গ্রেট ডটকম। আমাদের কারয্যক্রমঃ- ক) ফিকহে হানাফী দ্যা গ্রেট ডটকম । খ) ফিকহে হানাফী দ্যা গ্রেট অনলাইন রিচার্স সেন্টার । গ) বাতিলের মোকাবেলায় সারা দুনিয়া ব্যাপি ইসলামিক সেমিনার ঘ) এবং মুনাজারায় অংশগ্রহণ । ঙ) হোয়াটএ্যাপ্স, টেলিগ্রাম, ভাইবার & সোমা চ্যাট ম্যাসেঞ্জারে ফিকহে হানাফীঃপ্রশ্ন-উত্তর গ্রুপ। আমাদের ভবিষ্যত পরিকল্পনাঃ- ক) ফিকহে হানাফী দ্যা গ্রেট অফলাইন রিচার্স সেন্টার । খ) ফিকহে হানাফী দ্যা গ্রেট ইউনিভার্সিটি । গ) হানাফী টিভি সহ আরও বহুমুখি প্রকল্প। আমাদের আবেদনঃ- এই বহুমুখি এবং বিশাল প্রকল্প-এর ব্যয়ভার কারও একার পক্ষে বহন করা খুবই দুঃসাধ্য ব্যপার। সুতারাং আপনি নিজে ও আপনার হিতাকাংখি দ্বীনের খেদমতে আগ্রহী বন্ধুদের নিয়ে মাসিক/বাতসরিক ও এককালীন সদস্য হিসেবে সহযোগিতার হাত প্রশস্ত করে এগিয়ে আসবেন ; এটাই আমাদের প্রত্যাশা। সাহায্য পাঠাবার ঠিকানাঃ- ১) সোনালী ব্যাংক লিমিটেড, বয়রা শাখা, খুলনা Account Name: Md. Hedaytullah Account No: 2704501011569 ২) বিকাশঃ- +৮৮০১৯২৩৮৭১২৯৩ ৩) এমক্যাশঃ- +৮৮০১৯২৩৮৭১২৯৩৬ ৪) ডি,বি,বি,এল/রকেটঃ- +৮৮০১৯২৩৮৭১২৯৩৮ Express Money Transfer:- Name Hedaytullah ID NO 6512895339162 সার্বিক যোগাযোগঃ- মুফতি মুফাসসির হিদায়াতুল্লাহ শেখ মোবাঃ- +৮৮০১৯২৩৮৭১২৯৩ fiqhehanafithegreat@gmail.com