সম্মিলিতভাবে উচ্চ আওয়াজে দুরুদ শরিফ পাঠ করা যাবে কি?

From: muhammad ibrahim
Subject: দরুদ শরীফ


আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ
প্রশ্ন:সম্মেলিতভাবে উচ্চ আওয়াজে দরুদ শরীফ পড়া যাবে কিনা? দলিলসহ বিস্তারিত জানতে ইচ্ছুক।

সম্মিলিতভাবে উচ্চ আওয়াজে দুরুদ শরিফ পাঠ করা যাবে কি?

উত্তরঃ
প্রথমেই জেনে নেওয়া জরুরী যে, কোন আমল কবুল হওয়ার জন্য দুটি বিষয় জরুরী।

প্রথমত: আমলটি মৌলিকভাবে শরীয়াত সম্মত হওয়া।

দ্বীতিয়ত: উক্ত আমলটি আদায়ের ধরন বা পদ্ধতি ও শরিয়ত সমর্থিত হওয়া।

উদাহরন স্বরুপঃ গরু খাওয়া জায়েজ তবে যদি সঠিক পদ্ধতিতে জবাই করা না হয় তবে হালাল হবে না। কারণ মূল হালাল থাকলেও পদ্ধতিগত ভূলের কারনে তা হারাম হয়ে গেছে। আবার কুকুর যত সুন্নাত তরিকায় ই জবাই করা হোক না কেন তার মূল হারাম হওয়ার করনে তা হালাল হবে না। 
তদ্রুপ দুরুদ পাঠ করা একটি মৌলিক ফজিলত পূর্ন আমল। তবে তা অনেক সময় পদ্ধতিগত ভ্রান্তির কারনে বেদআতের রুপ নেয়। যদ্দরুন নেকীর পরিবর্তে গোনাহের ভাগীদার হতে হয়। 
এখন জানার বিষয় হলো, আমলের সঠিক পদ্ধতি নির্ধারিত হবে কিসের দ্বারা? এবিষয়ে সর্বজন বিধিত কথা হলো, আমলের যে পদ্ধতি কোরআন, সুন্নাহ, এবং সাহাবী তাবেয়ীদের আমলের দ্বারা প্রমান হবে তাই আমলের সঠিক পদ্ধতি। 
এর আলোকে প্রশ্নক্ত বিষয়টি বিশ্লেষন করলে দেখা যায়। নবী যুগ থেকে নিয়ে পরবর্তি সাহাবী তাবেয়ী যুগে কোথাও একত্রে সম্মেলিতভাবে উচ্চ আওয়াজে দরুদ পড়ার কোন দৃষ্টান্ত নেই। যা পরিবর্তিতে কিছু লোক মনগড়া উদ্ভব ঘটিয়েছে। আর দ্বীন শরীয়াতের ভিতর কোন নতুন সংযোজন বেদআত যা গুমরাহী। 
এমনকি ইবনে মাসউদ রা: থেকে বর্নিত আছে, একদা তিনি মসজিদে গিয়ে দেখলেন কিছু লোক সম্মিলিতভাবে উচ্চস্বরে দরুদ পড়ছে। তিনি তাদের ধমক দিলেন। এবং বললেন আমি তো দেখছি তোমরা বেদআতে লিপ্ত আছো। এমনকি তাদের মসজিদ থেকে বের করে দিলেন।
সুতরাং প্রশ্নক্ত পদ্ধতিতে তালে তাল মিলিয়ে একত্রে উচ্চস্বরে দরুদ পড়ার যে প্রচলন চালু আছে, কোরআন সুন্নাহে এর কোন ভিত্তি না থাকয় তা বেদআত। এর থেকে বিরত থাকা জরুরী।

عن الحسن بن علي رضي اللّٰہ عنہ أن رسول اللّٰہ صلی اللّٰہ علیہ وسلم قال: حیثما کنتم فصلوا عليّ فإن صلوٰتکم تبلغني۔ (رواہ الطبراني في الکبیر، والأوسط باسناد حسن، کذا في الترغیب والترہیب ۲؍۴۹۲ رقم: ۲۵۸۸)
عن ابن مسعود رضي اللّٰہ عنہ أنہ أخرج جماعۃ من المسجد یہللون ویصلون علی النبي صلی اللّٰہ علیہ وسلم جہراً وقال لہم: ما أراکم إلا مبتدعین الخ، ہل یکرہ رفع الصوت بالذکر والدعاء؟ قیل: نعم! (شامي زکریا ۹؍۵۷۰) 
عن عائشۃ رضي اللّٰہ تعالیٰ عنہا قالت: قال رسول اللّٰہ صلی اللّٰہ علیہ وسلم: من أحدث في أمرنا ہٰذا ما لیس منہ فہو رد۔ (صحیح البخاري، الصلح / باب إذا اصطلحوا علی صلح جور فالصلح مردود رقم: ۲۶۹۷، صحیح مسلم، الأقضیۃ / باب کراہیۃ قضاء القاضي وہو غضبان رقم: ۱۷۱۸، سنن أبي داؤد، السنۃ / باب في لزوم السنۃ رقم: ۴۶۰۶)  

বি:দ্র: একই সময় অনেকে দুরুদ পড়ার কারনে যে মৃধু গুঞ্জন হয়, যাতে তালে তাল মিলানো বা জোরে পড়ার উপর কোন গুরুত্ব থাকে না, তা বেদআতের আওতাভুক্ত হবে না।

Copyright By: মুফতি সা’দ আহমাদ দাঃবাঃ

মুহাদ্দিস, ইমদাদুল উলুম রশিদিয়া মাদ্রাসা, খুলনা।

About الفقه الحنفي الفقه الاكبر

বিদগ্ধ মুফতিয়ানে কেরামের দ্বারা পরিচালিত , সকল বাতিলের মুখোশ উন্মোচনে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ , উলামায়ে আহনাফ এবং হানাফি মাজহাবের অনুসারীদের সরবাধুনিক মুখপাত্র ফিকহে হানাফী দ্যা গ্রেট ডটকম। আমাদের কারয্যক্রমঃ- ক) ফিকহে হানাফী দ্যা গ্রেট ডটকম । খ) ফিকহে হানাফী দ্যা গ্রেট অনলাইন রিচার্স সেন্টার । গ) বাতিলের মোকাবেলায় সারা দুনিয়া ব্যাপি ইসলামিক সেমিনার ঘ) এবং মুনাজারায় অংশগ্রহণ । ঙ) হোয়াটএ্যাপ্স, টেলিগ্রাম, ভাইবার & সোমা চ্যাট ম্যাসেঞ্জারে ফিকহে হানাফীঃপ্রশ্ন-উত্তর গ্রুপ। আমাদের ভবিষ্যত পরিকল্পনাঃ- ক) ফিকহে হানাফী দ্যা গ্রেট অফলাইন রিচার্স সেন্টার । খ) ফিকহে হানাফী দ্যা গ্রেট ইউনিভার্সিটি । গ) হানাফী টিভি সহ আরও বহুমুখি প্রকল্প। আমাদের আবেদনঃ- এই বহুমুখি এবং বিশাল প্রকল্প-এর ব্যয়ভার কারও একার পক্ষে বহন করা খুবই দুঃসাধ্য ব্যপার। সুতারাং আপনি নিজে ও আপনার হিতাকাংখি দ্বীনের খেদমতে আগ্রহী বন্ধুদের নিয়ে মাসিক/বাতসরিক ও এককালীন সদস্য হিসেবে সহযোগিতার হাত প্রশস্ত করে এগিয়ে আসবেন ; এটাই আমাদের প্রত্যাশা। সাহায্য পাঠাবার ঠিকানাঃ- ১) সোনালী ব্যাংক লিমিটেড, বয়রা শাখা, খুলনা Account Name: Md. Hedaytullah Account No: 2704501011569 ২) বিকাশঃ- +৮৮০১৯২৩৮৭১২৯৩ ৩) এমক্যাশঃ- +৮৮০১৯২৩৮৭১২৯৩৬ ৪) ডি,বি,বি,এল/রকেটঃ- +৮৮০১৯২৩৮৭১২৯৩৮ Express Money Transfer:- Name Hedaytullah ID NO 6512895339162 সার্বিক যোগাযোগঃ- মুফতি মুফাসসির হিদায়াতুল্লাহ শেখ মোবাঃ- +৮৮০১৯২৩৮৭১২৯৩ fiqhehanafithegreat@gmail.com