হালাল হারামের দৃষ্টিতে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংঃ ইসলামী শরিয়ত কি বলে?

আসসালামুয়ালাইকুম, 
নিম্নলিখিত প্রশ্নের উত্তর পেলে আমি কৃতজ্ঞ হতাম। 

অনলাইনে অনেকেই উপার্যন করে থাকে। অনলাইন উপার্যনের অনেকগুলি মাধ্যমের একটি হচ্ছে এফিলিয়ট মার্কেটিং। এফিলিয়ট মার্কেটিং এর মধ্যে বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় হচ্ছে “এমাজন এফিলিয়ট মার্কেটিং”।


এফিলিয়ট মার্কেটিং কি? অনলাইনে ওয়েব সাইটের মাধ্যমে অনেক কিছু বেচাকেনা হয়। ঐ সব ওয়েব সাইটের মালিকরা তাদের বিক্রি বাড়ানোর জন্য লোকজনের (মার্কেটার) কাছে ঐ গুলি মার্কেটিং করার সুযোগ দেয়। মার্কেটাররা কেনাবেচা সাইটে একাউন্ট করে ট্রেকিং আইডি (Tracking ID) পায়। এই ক্ষেত্রে অনেক মার্কেটাররা নিজে ওয়েব সাইট খুলে এবং নিজের ওয়েব সাইটে ঐসব পন্য গুলোর বৈশিষ্ট, গুনাগুন এমন কি অনেক সময় তার খারাপ দিক ও তুলে ধরে। নিজের সাইটে মার্কেটাররা পন্য বেচার সাইটে লিংক দিয়ে দেয়। লিংকের সাথে ট্রেকিং আইডি থাকে। ঐ লিংকে কোন ভিজিটর যখন ক্লিক করে পন্য বিক্রির সাইটে যায় এবং ভিজিটর যদি কিছু কেনে তাহলে তখন ঐ মার্কেটার পন্য বিক্রি উপর একটি হারের কমিশন পায়। যা থেকে কেনা বেচার সাইট বুঝতে পারে এটা কোন ট্রেকিং আইডি। 
কিছু সাইট এমন আছে তাদের পন্য সীমিত যেমনঃ Booking.com এরা প্লেনের টিকিট, হোটেল বুকিং ইত্যাদি পন্য বিক্রি করে। 
আবার অন্যদিকে এমন কিছু সাইট আছে তারা প্রায় সব ধরনের (হালাল/হারাম) পন্য বিক্রি করে। যেমনঃ ebay.comalibaba.com এই গুলির মধ্যে বর্তমানে amazon.com সাইটা সবচেয়ে বিখ্যাত। এবং বেশি ভাগ মার্কেটারদের প্রথম পছন্দ। 
ব্রউজার কুকি (cookie) কি? 
আমরা ব্রউজার যে সাইটে ভিজিট করি ঐ সাইট চাইলে ব্রউজারের কিছু তথ্য সংরক্ষন করে রাখতে পারে। যেমনঃ আমার ইউজার নাম,পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করার সময় Remember me করি। প্রবর্তিতে আবার যখন ঐ সাইটে আসি তখন ব্রউজারে ইউজার নাম দেওয়ার প্রয়জন হয়না।
এমাজন এফিলিয়ট কমিশন পদ্ধতিঃ
যখন কোন ভিজিটর মার্কেটারের ওয়েব সাইট থেকে amazon.com site-এ যায়, সাথে এমাজনের ট্রাকিং আইডি নিয়ে যায়। এমাজন এই আইডি ব্রউজার কুকি মধ্যে ২৪ ঘন্টার জন্য সংরক্ষন করে রাখে। যদি এই ২৪ ঘন্টার মধ্যে ঐ ভিজিটর অন্য কোন মারকেটারের সাইট থেকে অন্য ট্রাকিং আইডি নিয়ে এমাজনে যায় তাহলে এমাজন আগের আইডি মুছে এই নতুন ট্রাকিং আইডি ঐ ব্রউজার কুকি তে সংরক্ষন করে। যখন সংরক্ষন করে তখন থেকে ২৪ ঘন্টা ধরা হয়। ২৪ ঘন্টার মধ্যে ভিজিটর এমাজন থেকে যাই কিনবে ঐ ট্রেকিং আইডি ওয়ালা মার্কেটার সব গুলোই বিক্রির উপর কমিশন পাবে। আর ই কারনে মার্কেটারদের এটা পচ্ছন্দও বেশি। 
এমাজনের হালাল/হারাম (গান, সিনেমা ইত্যাদি) উভয় রকমের পণ্য আছে।
মুসলমান হিসাবে মার্কেটার হালাল পণ্য নির্বচন করল। যেমনঃ সাইকেল। সে তার সাইটে বিভিন্ন রকম সাইকেলের বর্ণনা দিল যেখান থেকে ভিজিটর এমাজনে যায় এবং পণ্য কিনে। 
এমাজনে সাইটে গিয়ে ভিজিটর ৪ রকমের কাজ করতে পারেঃ 
(ক) ভিজিটর কিছুই কিনল না। (খ) ভিজিটর শুধুই হালাল পণ্য কিনল।(গ) ভিজিটর শুধু হারাম পণ্য কিনল। (ঘ) ভিজিটর হালাল এবং হারাম উভয় পণ্য কিনল। 
প্রশ্নঃ 
মার্কেটারে উপার্জন হালাল হবে কিনা? ভিজিটারের পণ্য কেনা মার্কেটারের নিয়ন্ত্রনে নাই। মার্কেটার উর্পজিত সমস্ত কমিশনি কি হারাম হবে? যদি পুরাটাই হারাম না হয় তাহলে কতটুকু হালাল হবে? যতুটুকু হারাম কমিশন হল তত টুকু বিনা সওয়াবের গরিব কাউকে দিয়ে দিলে? 

হালাল হারামের দৃষ্টিতে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংঃ ইসলামী শরিয়ত কি বলে?

Regards,খালিদ

উত্তরঃ

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মধ্যে প্রধানত কয়েকটি বিষয়ে এমন রয়েছে যা ইসলামী বাণিজ্য নীতির পরিপন্থী। 

১. অ্যাফিলিয়েট মার্চেন্ট কাউন্টধারী ব্যক্তির সাথে  শতকরা হারে কমিশন দেওয়ার চুক্তি থাকে। কখন পার সেল কমিশন দেওয়া হয়। যাকে রেভিনিউ শেয়ারিং বলে। আবার কখনো বা পার শেয়ার বা ক্লিক কমিশন দেওয়া হয়।  যাকে সিপিসি শেয়ারিং বলে। এটা জায়েজ নেই। উদাহরণস্বরূপ আমি কাউকে ১০ টি কলম বিক্রি করার জন্য নিয়োগ দিলাম এভাবে যে, প্রতিটি কলম বিক্রি করার উপর 2% করে কমিশন দেওয়া হবে।  এটা জায়েয নয়। হতে পারে সে সারাদিন ঘোরাঘুরি করল, কিন্তু দিনশেষে কিছুই বিক্রি করতে পারল না। এতে তার লস হবে। বরং এক্ষেত্রে সঠিক পদ্ধতি হলো। তার জন্য একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ বেতন নির্ধারিত করা হবে।  এবং কলম বিক্রি করতে পারুক আর না পারুক সর্বাবস্থায় তাকে তার কষ্টের বিনিময় দেওয়া হবে। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর ক্ষেত্রেও তদ্রুপ। এখানে একজন অ্যাফিলিয়েটর দিনভর খাটাখাটনি করছে, কম্পিউটারে তার বিদ্যুৎ বিল, ইন্টারনেট বিল অন্যান্য খরচাদির পর দিন শেষে সে যদি কোন সেল না পায়। এতে তার লস হবে। যার কোন বিনিময় সে পাচ্ছে না।

২. কোম্পানি পণ্যের যে দাম নির্ধারণ করে এরমধ্যে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটারদের কমিশনও হিসাব করা হয়।  তার মানে হল, যখন আপনার অ্যাফিলিয়েট লিংক থেকে কেউ পণ্য ক্রয় করছে, কম্পানি ভোক্তার পকেট থেকে আপনার কমিশন পরিমানও রেখে দিচ্ছে।  যার ভিত্তিতে পণ্য ভালো খারাপ হওয়ার একটি দায়ভার আপনার উপরেও বর্তায়। উদাহরণস্বরূপ কোন ডাক্তার ওষুধের দোকানদারের সাথে এমন চুক্তি করলো যে, প্রেসক্রিপশন করে তোমার কাছে রোগী পাঠাবো এবং ওষুধ বিক্রির নির্দিষ্ট একটি কমিশন আমাকে দেবে।  এক্ষেত্রে যদি ওষুধ বিক্রেতা ভেজাল ওষুধ বিক্রি করে তবে ডাক্তার এ দায় থেকে মুক্ত হতে পারবেনা। তদ্রুপ অনলাইন মার্কেটে যেসব পণ্য বেচাকেনা হয় একজন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটারের এর ভাল খারাপ সম্পর্কে তেমন ধারণা থাকে না। যার ভিত্তিতে অন্য যদি খারাপ হয় তবে তার এই কমিশন ও হারাম হবে।  যা পরবর্তীতে নিরক্ষন করার কোন ব্যবস্থা থাকে না। 

৩. অ্যাফিলিয়েট লিংকের মাধ্যমে মূল মার্কেটে প্রবেশের পর কেনাবেচার ক্ষেত্রে গ্রাহক স্বাধীন হয়ে যায়।  যদি হারাম কিছু ক্রয় বিক্রয় করে, তবে তা নিরক্ষনের জন্য কোন ব্যবস্থা থাকে না। এটা এমন হল যে আমি হালাল-হারাম দুই ধরনের পণ্য বিক্রি করি।  আর হারাম বিক্রয় পরিমাণ সদকা করি। এটা এক ধরনের তামাশা। 

 আফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের উল্লেখিত শরয়ী সমস্যাগুলি পর্যবেক্ষণের পর কোরআন ও হাদিসের নিরিখে এই সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া যায় যে,  তা ইসলামী বাণিজ্য নীতির অনেক দিক থেকেই পরিপন্থী। 

 হাদিসে পাকে এরশাদ হয়েছে- ( মুসলিম-1513)

عن ابي هُريرة رضي الله عنه قال: (نهى رسول الله ﷺ عن بيع الحصاةِ، وعن بيعِ الغَرَرِ)  

অর্থাৎ: নবীজি সা: অনুমান করে  এবং ধোকাবসত ক্রয়-বিক্রয় করতে নিষেধ করেছেন।

আর এ পদ্ধতিতে ভক্তরা ধোকা গ্রস্থ হওয়ার বেশ কিছু সম্ভাবনা রয়েছে, যার কিছু উপরে উল্লেখ করা হলো।  আর ডাবল টায়ার কিংবা মাল্টি টায়ার সেলে তো ধোকাগ্রস্থ হওয়ার আরো বেশী সম্ভাবনা থাকে। যা বিজ্ঞজনের কাছে স্পষ্ট।

সুতরাং,  বর্তমান অ্যাফিলিয়েট পদ্ধতিতে কমিশন হারে অর্থ উপার্জন বৈধ নয়।

Copyright By: মুফতি সা’দ আহমাদ

সিনিয়র শিক্ষক, ইমদাদুল উলুম রশিদিয়া মাদ্রাসা, খুলনা।

About الفقه الحنفي الفقه الاكبر

বিদগ্ধ মুফতিয়ানে কেরামের দ্বারা পরিচালিত , সকল বাতিলের মুখোশ উন্মোচনে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ , উলামায়ে আহনাফ এবং হানাফি মাজহাবের অনুসারীদের সরবাধুনিক মুখপাত্র ফিকহে হানাফী দ্যা গ্রেট ডটকম। আমাদের কারয্যক্রমঃ- ক) ফিকহে হানাফী দ্যা গ্রেট ডটকম । খ) ফিকহে হানাফী দ্যা গ্রেট অনলাইন রিচার্স সেন্টার । গ) বাতিলের মোকাবেলায় সারা দুনিয়া ব্যাপি ইসলামিক সেমিনার ঘ) এবং মুনাজারায় অংশগ্রহণ । ঙ) হোয়াটএ্যাপ্স, টেলিগ্রাম, ভাইবার & সোমা চ্যাট ম্যাসেঞ্জারে ফিকহে হানাফীঃপ্রশ্ন-উত্তর গ্রুপ। আমাদের ভবিষ্যত পরিকল্পনাঃ- ক) ফিকহে হানাফী দ্যা গ্রেট অফলাইন রিচার্স সেন্টার । খ) ফিকহে হানাফী দ্যা গ্রেট ইউনিভার্সিটি । গ) হানাফী টিভি সহ আরও বহুমুখি প্রকল্প। আমাদের আবেদনঃ- এই বহুমুখি এবং বিশাল প্রকল্প-এর ব্যয়ভার কারও একার পক্ষে বহন করা খুবই দুঃসাধ্য ব্যপার। সুতারাং আপনি নিজে ও আপনার হিতাকাংখি দ্বীনের খেদমতে আগ্রহী বন্ধুদের নিয়ে মাসিক/বাতসরিক ও এককালীন সদস্য হিসেবে সহযোগিতার হাত প্রশস্ত করে এগিয়ে আসবেন ; এটাই আমাদের প্রত্যাশা। সাহায্য পাঠাবার ঠিকানাঃ- ১) সোনালী ব্যাংক লিমিটেড, বয়রা শাখা, খুলনা Account Name: Md. Hedaytullah Account No: 2704501011569 ২) বিকাশঃ- +৮৮০১৯২৩৮৭১২৯৩ ৩) এমক্যাশঃ- +৮৮০১৯২৩৮৭১২৯৩৬ ৪) ডি,বি,বি,এল/রকেটঃ- +৮৮০১৯২৩৮৭১২৯৩৮ Express Money Transfer:- Name Hedaytullah ID NO 6512895339162 সার্বিক যোগাযোগঃ- মুফতি মুফাসসির হিদায়াতুল্লাহ শেখ মোবাঃ- +৮৮০১৯২৩৮৭১২৯৩ fiqhehanafithegreat@gmail.com